Pages

Tuesday, July 24, 2018

দেবী বিমলা

বিমলা মন্দির হল ভারতের ওড়িশা রাজ্যের পুরী শহরের জগন্নাথ মন্দির চত্বরে অবস্থিত একটি হিন্দু মন্দির। এটি দেবী বিমলার মন্দির। হিন্দুরা এই মন্দিরটিকে একটি শক্তিপীঠ (শাক্ত সম্প্রদায়ের কাছে পবিত্র প্রধান তীর্থগুলির অন্যতম) মনে করেন।
বিমলা মন্দির জগন্নাথ মন্দির চত্বরের ভিতরের অংশের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে এবং জগন্নাথের মিনারের পশ্চিম কোণে অবস্থিত। এই মন্দিরের পাশেই পবিত্র জলাধার রোহিণীকুণ্ড অবস্থিত। মন্দিরটি পূর্বমুখী এবং বেলেপাথর ও ল্যাটেরাইটে নির্মিত। এই মন্দির "দেউল" স্থাপত্যশৈলীর একটি নিদর্শন। মন্দিরের চারটি অংশ দেখা যায়: বিমান (গর্ভগৃহ-সম্বলিত অংশ), জগমোহন (সভাকক্ষ), নাট-মণ্ডপ (উৎসব কক্ষ) ও ভোগ-মণ্ডপ (ভোগ নিবেদনের কক্ষ)।
২০০৫ সালে মন্দিরটি সংস্কার হয়। বর্তমানে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার ভুবনেশ্বর শাখা এই মন্দিরের রক্ষণাবেক্ষণ করে থাকে। বিমলা মন্দিরটি জগন্নাথ মন্দির চত্বরের একটি ছোটো মন্দির হলেও শাক্ত ও তান্ত্রিকদের কাছে একটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ তীর্থ। তাঁরা মূল জগন্নাথ মন্দিরের চেয়েও এই মন্দিরটিকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। তান্ত্রিক মতে, বিমলা জগন্নাথের শক্তি এবং মন্দির চত্বরের রক্ষয়িত্রী। ভক্তেরা মূল মন্দিরে জগন্নাথকে পূজা করার আগে বিমলাকে পূজা করেন। জগন্নাথের প্রসাদ বিমলাকে নিবেদন করার পরেই মহাপ্রসাদ হিসেবে গণ্য হয়। প্রতি বছর আশ্বিন মাসে (সেপ্টেম্বর-অক্টোবর) উদযাপিত দুর্গাপূজা এই মন্দিরের প্রধান উৎসব।
ইতিহাস
বিমলার আদিমূর্তিটি খ্রিস্টীয় ষষ্ঠ শতাব্দীতে নির্মিত। বর্তমান মন্দিরটি সম্ভবত সম্ভবত খ্রিস্টীয় নবম শতাব্দীতে পূর্ব গঙ্গ রাজবংশের রাজত্বকালে আগের মন্দিরটির ধ্বংসাবশেষের উপর নির্মিত হয়েছে। জগন্নাথ মন্দির চত্বরের মুক্তিমণ্ডপের কাছে খ্রিস্টীয় নবম শতাব্দীতে নির্মিত যে নৃসিংহ মন্দিরটি আছে, তার সঙ্গে বিমলা মন্দিরের স্থাপত্যগত মিল দেখা যায়।[১] মাদলা পাঁজি অনুসারে, দক্ষিণ কোশলের সোমবংশী রাজবংশের রাজা যযাতি কেশরী এই মন্দিরটি নির্মাণ করিয়েছিলেন। রাজা প্রথম যযাতি (খ্রিস্টীয় ৯২২–৯৫৫) ও দ্বিতীয় যযাতি (খ্রিস্টীয় ১০২৫–১০৪০)–উভয়েই "যযাতি কেশরী" নামে পরিচিত ছিলেন। মন্দিরের স্থাপত্যশৈলী–বিশেষত পার্শ্বদেবতাদের মূর্তি ও মূল মূর্তিটির পিছনের প্রস্তরখণ্ডটি–সোমবংশী শৈলীর নিদর্শন বহন করে। এগুলি সম্ভবত সেই প্রথম মন্দিরের অংশ ছিল, যার ধ্বংসাবশেষের উপর বর্তমান মন্দিরটি গড়ে উঠেছে। এই মন্দিরটিকে মন্দির চত্বরের প্রধান মন্দির জগন্নাথ মন্দিরের চেয়েও পুরনো বলে মনে করা হয়।
মনে করা হয়, হিন্দু দার্শনিক ও সন্ত আদি শঙ্কর (খ্রিস্টীয় অষ্টম শতাব্দী) বিমলাকে প্রধান দেবী হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে পুরীতে গোবর্ধন মঠ স্থাপন করেছিলেন। দ্য জগন্নাথ টেম্পল অ্যাট পুরী গ্রন্থের লেখক স্টারজার মতে, প্রাচীনকালে জগন্নাথ মন্দির ছিল ব্রহ্মা, বিষ্ণু ও শিব–এই ত্রিমূর্তি পূজার কেন্দ্র। উক্ত তিন দেবতার শক্তিগণ তথা হিন্দু দেবমণ্ডলীর তিন প্রধান দেবী সরস্বতী, লক্ষ্মী ও পার্বতীও (বিমলার মূর্তিতে) এখানে পূজিত হতেন। খ্রিস্টীয় সপ্তদশ শতাব্দী পর্যন্ত এখানে শাক্ত শ্রীবিদ্যা-উপাসকদের ভাল প্রভাব ছিল। পরবর্তীকালে বৈষ্ণবধর্ম এই মন্দির চত্বরে প্রাধান্য অর্জন করলে শ্রীবিদ্যা ও শৈব-তান্ত্রিক প্রভাব কমে যায়। তবে এই প্রভাব একেবারে লুপ্ত হয়নি। তান্ত্রিক "পঞ্চমকার" উপচারের পরিবর্তে মন্দিরে নিরামিষ ভোগ ও দেবদাসী নৃত্যের প্রথা চালু হয়। অবশ্য মাছ ভোগ দেবার প্রথাও প্রচলিত ছিল। রাজা নরসিংহদেব (শাসনকাল ১৬৩২–৪৭ খ্রিস্টাব্দ) মন্দিরে মাছ ও মাংস ভোগের প্রথা বন্ধ করে দেন। যদিও পরবর্তীকালে এই প্রথা আংশিকভাবে চালু করা হয়েছিল। বর্তমানে, বিশেষ বিশেষ দিনে বিমলাকে মাছ ও মাংস ভোগ দেওয়া হয়।
স্থাপত্য
বিমলা মন্দির জগন্নাথ মন্দির চত্বরের ভিতরের দিকে দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে এবং জগন্নাথের মিনারের পশ্চিম কোণের ডান দিকে অবস্থিত। এই মন্দিরের পাশে রোহিণীকুণ্ড নামে একটি জলাধার রয়েছে। এটিকে হিন্দুরা পবিত্র মনে করেন। মন্দিরটি বেলেপাথর ও ল্যাটেরাইটে নির্মিত। বিমলা মন্দির "দেউল" স্থাপত্যশৈলীর একটি নিদর্শন। এই মন্দিরের চারটি অংশ দেখা যায়: বিমান (যে অংশে গর্ভগৃহ অবস্থিত), জগমোহন (সভাকক্ষ), নাট-মণ্ডপ (উৎসব কক্ষ) ও ভোগ-মণ্ডপ (ভোগ নিবেদনের কক্ষ)। ২০০৫ সালে মন্দিরটি সংস্কার করা হয়েছে। বর্তমানে এটির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে আছে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার ভুবনেশ্বর সার্কেল।
বিমান
বিমান হল একটি রেখ দেউল (শম্বুকাকার চিনির ডেলার মতো আকৃতিবিশিষ্ট একটি দীর্ঘাকার ভবন)। বিমলা মন্দিরের বিমানটির উচ্চতা ৬০ ফুট (১৮ মি)। এটি ১৫ ফুট (৪.৬ মি) আয়তনের বর্গাকার আকৃতিবিশিষ্ট। মন্দিরটি ২ ফুট (০.৬১ মি) উচ্চতার একটি বেদীর উপর দাঁড়িয়ে আছে। বেদীটি পদ্ম ও অন্যান্য ফুল পাতা ও অন্যান্য ছবিতে চিত্রিত। বিমানের বাইরের দেওয়ালটি পাঁচটি ভাগে বিভক্ত (ভিত্তি থেকে শীর্ষভাগ পর্যন্ত): "পাভাগ", "তলজঙ্ঘা", "বন্ধন", "উপর জঙ্ঘা" ও "বারান্দা"। দেওয়ালের প্রথম অংশের কুলুঙ্গি ও সংযোগরক্ষাকারী জায়গাগুলিতে "খখর মুন্ডি" (এক ধরনের কুলুঙ্গি), পুথিচিত্র, ফুল-পাতার ছবি, সংগমরত যুগল ও নাগের (সর্প-পুরুষ) ছবি অলংকৃত রয়েছে। দ্বিতীয় অংশের কুলুঙ্গি ও যোগাযোগরক্ষাকারী জায়গাগুলিতে "খখর মুন্ডি", "সিংহবিদল" (একটি সিংহমুখী জন্তু), "গজবিদল" (সিংহ-মর্দনকারী একটি হস্তিমুখী সিংহ), জালিচিত্র, পুথিচিত্র, "শিক্ষাদান" চিত্র (ঋষিগণের উপদেশ দানের দৃশ্য) ও "কীর্তিমুখ" (একটি দানব মুখ) এবং অষ্ট দিকপাল (দিকের দেবতা) ও কয়েকটি দেবীমূর্তি চিত্রিত আছে। বাইরের দেওয়ালের তৃতীয় অংশে দুটি আনুভূমিক তলে "অলসকন্যা" (সুন্দরী নারী), পুথিচিত্র এবং পদ্ম ও অন্যান্য ফুলের মোটিফ খোদাই করা আছে। চতুর্থ অংশের কুলুঙ্গি ও সংযোগরক্ষাকারী জায়গায় "পীঢ়া-মুন্ডি" (এক ধরনের কুলুঙ্গি), "সিংহবিদল", কামোদ্দীপক দৃশ্যাবলি, "অলসকন্যা", পুথিচিত্র, জালিচিত্র, ফুলের নকশা এবং দিকপালদের স্ত্রী, নাগ ও তাঁদের স্ত্রী নাগিনীগণ সহ অন্যান্য দেবীমূর্তি খোদিত আছে। দিকপাল ও তাঁদের স্ত্রীদের নিজ নিজ বাহন-সহ যাঁরা যে দিকের অধিপতি তাঁদের সেই দিকেই রাখা হয়েছে।
পার্শ্বদেবতাদের মূর্তিগুলি তিন দিকের বাইরের দেওয়ালে ("বড়") কেন্দ্রীয় কুলুঙ্গিতে রাখা আছে: দক্ষিণে মহিষাসুর-বধকারিনী অষ্টভূজা দুর্গা ও পশ্চিমে শিবের উপর দণ্ডায়মান ষড়ভূজা চামুণ্ডা। উত্তরের কুলুঙ্গিটি খালি। সম্ভবত এখানে যে দেবীমূর্তিটি ছিল, সেটি চুরি হয়ে গিয়েছে। পার্শ্বদেবতাদের বেদীর আনুভূমিক পাটাতনে গজলক্ষ্মী মূর্তি দেখা যায়। কুলুঙ্গির চারদিক পুথিচিত্র ও "কীর্তিমুখ" মোটিফ এবং কুলুঙ্গি-প্রতি দু-জন সখির চিত্রে শোভিত। বাইরের দেওয়ালের সবচেয়ে উপরের অংশটিতে দশটি আনুভূমিক তলে পুথিচিত্র, কীর্তিমুখ এবং পদ্ম ও অন্যান্য ফুলের মোটিফ দেখা যায়। বিমানের মধ্যে "গর্ভগৃহ" অংশটি রয়েছে। এই অংশের উপরিভাগ "পঞ্চরথ" শৈলীতে নির্মিত। শীর্ষভাগ খাঁজবিশিষ্ট।
বিমলার মূর্তি রাখা আছে কেন্দ্রীয় গর্ভগৃহে। এটি খ্রিস্টীয় ষষ্ঠ শতকে নির্মিত একটি কক্ষ। এখানকার দেওয়ালে কোনো ছবি দেখা যায় না।বিমলার কেন্দ্রীয় মূর্তিটির উপরের ডান হাতে একটি জপমালা এবং নিচের ডানহাতে বরদামুদ্রা; অন্যদিকে নিচের বাঁ হাতে একটি কুম্ভ (সম্ভবত অমৃতকুম্ভ) আছে। উপরের বাঁ হাতের বস্তুটি নিয়ে তীব্র মতভেদ আছে। এছাড়া একটি নারীমূর্তি, একটি নাগিনী, একটি মৎস্যকন্যা, একটি নাগ-পাশ ও অন্যান্য কয়েকটি বস্তু রয়েছে। বিমলার হাতে এমন কোনো অস্ত্র নেই যেগুলি সচরাচর দুর্গার হাতে দেখা যায়। মূর্তিটি একটি সিংহাসনে রাখা থাকে। মূর্তির দুই পাশে বিমলার দুই সখি ছায়া ও মায়ার মূর্তি রয়েছে। মূর্তিটি লাক্ষা দিয়ে নির্মিত বলে শোনা যায়। এটির উচ্চতা ৪ ফুট (১.২ মি)-এর কিছু বেশি।
গর্ভগৃহের দরজাটি থেকে একটি সিঁড়ি উঠে যাচ্ছে জগমোহনে। এখানে বেদীর গায়ের ফ্রেমে অপ্সরা-পরিবেষ্টিত গজলক্ষ্মী-মূর্তি দেখা যায়। বেদীর উপরের ফ্রেমে নবগ্রহ অঙ্কিত আছে। দরজার দুপাশের পাটাতনে পুথিচিত্র, লতাপাতা, ফুল ও ক্রীড়ারত বালকের ছবি দেখা যায়। দরজার ধারে দুটি দ্বারপাল মূর্তি দেখা যায়।
পূজা
ওড়িশাবাসী হিন্দুরা বিমলা মন্দিরকে প্রধান শাক্ত তীর্থ মনে করেন। ভক্তেরা প্রতিদিন এই মন্দিরে মার্কণ্ডেয় পুরাণ-ভুক্ত দেবীমাহাত্ম্যম্, আদি শঙ্কর রচিত দেব্যাপরাধক্ষমাপণ স্তোত্রম্‌ ও পুরুষোত্তম রক্ষিত রচিত বিমলাষ্টকম্‌ পাঠ করেন।জগন্নাথ মন্দিরের নিয়ম অনুসারে, মূল মন্দিরে জগন্নাথকে পূজার আগে বিমলাকে পূজা করতে হয়। বিমলার "তীর্থ" বা পবিত্র জলাধার রোহিণীকুণ্ডের জল পবিত্র মনে করা হয়।তান্ত্রিকদের কাছে বিমলা মন্দিরের গুরুত্ব মূল জগন্নাথ মন্দিরের চেয়েও বেশি।
দুর্গাপূজা বিমলা মন্দিরের প্রধান উৎসব। প্রতি বছর আশ্বিন (সেপ্টেম্বর-অক্টোবর) মাসে ষোলো দিন ধরে দুর্গাপূজা উদ্‌যাপিত হয়। দুর্গাপূজার শেষ দিন, অর্থাৎ বিজয়াদশমীতে পুরীর গজপতি-বংশীয় রাজা (ইনি নামমাত্র রাজা) বিমলাকে মহিষাসুরমর্দিনী দুর্গা রূপে পূজা করেন। নতুন দিল্লি কোণার্ক শিলালেখ-এ এই পূজার প্রাচীনতম উল্লেখ পাওয়া যায়। এই শিলালেখের তথ্য অনুসারে, রাজা প্রথম নরসিংহদেব (রাজত্বকাল: ১২৩৮–১২৬৪) বিজয়াদশমীর দিন দুর্গা-মাধব (বিমলা-জগন্নাথ) পূজা করেছিলেন। জগন্নাথ মন্দিরের প্রথা অনুসারে, মেয়েদের "দুর্বল-হৃদয়" মনে করা হয়। তাই বিমলার ধ্বংসাত্মিকা রূপ মহিষাসুরমর্দিনীর পূজা হয় বলে, বিমলা মন্দিরে দুর্গাপূজা মেয়েদের দেখতে দেওয়া হয় না।

0 comments:

Post a Comment

 
Design by দেবীমা | Bloggerized by Lasantha - Premium Blogger Themes | Facebook Themes