Pages

Monday, August 20, 2018

যোগিনী

যোগিনী হল পুরুষবাচক সংস্কৃত শব্দ যোগীর নারীবাচক শব্দ, যেখানে "যোগিন" শব্দটি পুরুষ, নারী বা লিঙ্গ-নিরপেক্ষ ভাবে ব্যবহ্যত হয়।যোগীর সমস্ত কিছুর একটি লিঙ্গ-তকমা ছাড়াও, যোগিনী যুগপৎভাবে যোগের একজন মহিলা অভিজ্ঞ অনুশীলনকারী এবং ভারত, নেপাল ও তিব্বতে মহিলা হিন্দু বা বৌদ্ধ আধ্যাত্মিক শিক্ষকদের জন্য সম্মানের একটি প্রাতিষ্ঠানিক শব্দ উভয়েরই প্রতিনিধিত্ব করে।
হিন্দু ঐতিহ্যে, যোগিনী বলতে সেইসব নারীদের বোঝানো হয় যারা হিন্দু ঐতিহ্যের যোগশাস্ত্রের অংশ এবং যারা গোরক্ষনাথ-প্রবর্তিত নাথ যোগী ঐতিহ্যের অংশ ছিলেন। কয়েকটি প্রসঙ্গে, যোগিনী, দেবী পার্বতী-সূত্রে অবতীর্ণ পবিত্র নারীশক্তির অংশ হিসাবে উল্লিখিত হন , এবং ভারতে যোগিনী মন্দিরগুলিতে আটজন মাতৃকা বা চৌষট্টিজন যোগিনী হিসাবে সম্মানিত হন।
যোগিনী হিসাবে এমন নারীদেরও উল্লেখ করা হয়, যারা হিন্দু ও বৌদ্ধতন্ত্রের ঐতিহ্যের অংশ। তান্ত্রিক বৌদ্ধধর্মে, মিরান্ডা সাউ বলেন যে ডোম্বিযোগিনী, সহজযোগিচিন্তা, লক্ষ্মীঙ্করা, মেখলা, কঙ্কাল গঙ্গাধরা, সিদ্ধরাজ্ঞী ও অন্যান্যদের মত প্রচুর নারীরা সম্মানিত যোগিনী এবং আধ্যাত্মিক জ্ঞানচর্যার পথের প্রাগ্রসর অন্বেষক ছিলেন।
তিব্বতি বৌদ্ধধর্ম এবং বোন ঐতিহ্যে, ব্যবহারিকভাবে, ভারতীয় বৌদ্ধধর্মের মহাসিদ্ধ যোগিনীদের সাথে কিছু নগম তুুলনীয়।

মধ্যপ্রদেশে অবস্থিত অষ্টম শতকের চৌষট্টি যোগিনী মন্দির
ভারতে চৌষট্টি যোগিনীর (৬৪জন কিংবদন্তী যোগিনীর নামে নামকৃত) চারটি প্রধান মন্দির রয়েছে, উড়িষ্যাতে দুটি এবং মধ্যপ্রদেশে দুটি। উড়িষ্যাতে সবচেয়ে চিত্তাকর্ষক যোগিনী মন্দিরগুলির মধ্যে একটি নবম শতাব্দীর ছাদবিহীন চৌষট্টি যোগিনী মন্দির, এটি ভুবনেশ্বরের ১৫ কিমি দক্ষিণে খুরদা জেলার হীরাপুরে অবস্থিত। উড়িষ্যার আরেকটি ছাদবিহীন চৌষট্টি যোগিনী মন্দির বালাঙ্গীর জেলার তিতীলগড়ের কাছে রাণীপুর-ঝড়িয়ালের চৌষট্টি যোগিনী পিঠ। এই মন্দির থেকে ৬৪ যোগিনীর দুটি ছবি হারিয়ে গেছে।

মধ্যপ্রদেশে দুটি উল্লেখযোগ্য যোগিনী মন্দির ছত্রপুর জেলার ছত্রপুরের খাজুরাহো মন্দিরের পশ্চিমাঞ্চলের দক্ষিণ-পশ্চিমে নবম শতাব্দীর চৌষট্টি যোগিনী মন্দির এবং দশম শতাব্দীর চৌষট্টি যোগিনী মন্দির, জব্বলপুর জেলার জব্বলপুরের কাছে ভেদাঘাটে অবস্থিত।
চারটি যোগিনী মন্দিরের মধ্যে যোগিনী ভাবের মূর্তিগুলি অভিন্ন নয়। হীরাপুরে মন্দিরে, সব যোগিনী মূর্তি তাদের বাহন (শকট) এবং স্থায়ী ভঙ্গিমায় রয়েছে। রাণীপুর-ঝড়িয়াল মন্দিরে যোগিনী মূর্তিগুলি নৃত্যরত ভঙ্গিমায় রয়েছে। ভেদাঘাট মন্দিরে, যোগিনী মূর্তিসমূহ ললিতাসন-এ বসে আছেন
প্রায়ই মাতৃকাদের কিংবদন্তি যোগিনীদের সঙ্গে বিভ্রান্ত করা হয়, যারা সংখ্যায় ৬৪ বা ৮১ হতে পারেন। সংস্কৃত সাহিত্যে, যোগিনীদেরকে দেবী দুর্গার শুম্ভ ও নিশুম্ভের সাথে যুদ্ধরত অবস্থায় বিভিন্ন রূপে বা আত্মীয় হিসাবে প্রকাশ করা হয় এবং প্রধান যোগিনীদের মাতৃকাদের সাথে চিহ্নিত করা হয়। অন্য যোগিনীগণকে এক বা একাধিক মাতৃকা থেকে উৎপন্ন হিসাবে বর্ণনা করা হয়। আটজন মাতৃকা থেকে ৬৪জন যোগিনীর উৎপত্তি একটি ঐতিহ্য হয়ে ওঠে। একাদশ শতকের মাঝামাঝি সময়ে, যোগিনী ও মাতৃকাদের সম্পর্ক সাধারণ ব্যাপার হয়ে উঠেছিল। যোগিণীগুলির মণ্ডল (বৃত্ত) ও চক্র বিকল্পরূপে ব্যবহার করা হত। ৮১জন যোগিনী নয়জন মাতৃকার একটি দল থেকে বিবর্তিত হন, আটজনের পরিবর্তে। সপ্তমাতৃকা (ব্রাহ্মী, মাহেশ্বরী, কৌমারী, বৈষ্ণবী, বারাহী, ইন্দ্রাণী (ঐন্দ্রী) ও চামুণ্ডী) চণ্ডিকা এবং মহালক্ষ্মী রূপের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে নব-মাতৃকা জোট গঠন করেন। প্রতিটি মাতৃকা একজন যোগিনী বলে গণ্য হন এবং অন্য আটজন যোগিনীর সঙ্গে সম্বন্ধযুক্ত হন যাতে ৮১ (নয় গুণিতক নয়) জনের দল গঠিত হয়। কিছু ঐতিহ্যে, মাত্র সাতজন মাতৃকা, এবং এইভাবে অল্পতর যোগিনী আছেন।

0 comments:

Post a Comment

 
Design by দেবীমা | Bloggerized by Lasantha - Premium Blogger Themes | Facebook Themes