Pages

Friday, January 25, 2019

অর্ধনারীশ্বর হল হিন্দু দেবতা শিব ও তাঁর পত্নী পার্বতীর একটি সম্মিলিত উভলিঙ্গ মূর্তি


অর্ধনারীশ্বর

অর্ধনারীশ্বর হল হিন্দু দেবতা শিব ও তাঁর পত্নী পার্বতীর (যিনি এই মূর্তিতে মহাশক্তি ও উমা নামেও পরিচিত) একটি সম্মিলিত উভলিঙ্গ মূর্তি। অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি অর্ধেক পুরুষ ও অর্ধেক নারী হিসেবে দর্শিত হয়। এই মূর্তিটির ডানপার্শ্বে সাধারণত শিবকে তাঁর প্রথাগত মূর্তিতে দেখা যায়।

অর্ধনারীশ্বরের প্রাচীনতম মূর্তিটি কুষাণ যুগের। খ্রিস্টীয় ১ম শতাব্দী থেকে এই ধরনের মূর্তি নির্মাণ শুরু হয়। গুপ্ত যুগে অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি বিবর্তিত হয় এবং যথাযথ রূপ ধারণ করে। পুরাণ ও বিভিন্ন মূর্তিতত্ত্ব সংক্রান্ত ধর্মগ্রন্থে অর্ধনারীশ্বর বিষয়ক পৌরাণিক কাহিনি ও মূর্তিতত্ত্ব লিখিত হয়েছে। অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি একটি জনপ্রিয় শিল্পকলা হিসেবে ভারতের বেশিরভাগ শিব মন্দিরে দেখা গেলেও, এই মূর্তিটির নিজস্ব মন্দিরের সংখ্যা খুবই কম।

অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি বিশ্বের পুরুষ ও প্রকৃতির শক্তির সম্মিলিত রূপের প্রকাশ। এই মূর্তির মাধ্যমে দেখানো হয়, শক্তি অর্থাৎ ঈশ্বরের নারীসত্ত্বা ও তাঁর পুরুষ সত্ত্বা শিব থেকে অভিন্ন। এই দুই সত্ত্বার সম্মিলনকে সকল সৃষ্টির মূল ও গর্ভ বলে স্তব করা হয়। অন্য একটি মতে, অর্ধনারীশ্বর হলেন শিবের সর্বব্যাপী প্রকৃতির প্রতীক।


অর্ধনারীশ্বর’ নামটির অর্থ ‘অর্ধেক নারী রূপী ঈশ্বর’। অর্ধনারীশ্বর অন্যান্য কিছু নামেও পরিচিত। এগুলি হল: ‘অর্ধনরনারী’ (অর্ধেক নারী-পুরুষ), ‘অর্ধনারীশ’ (অর্ধেক নারী রূপী ঈশ্বর), ‘অর্ধনারীনটেশ্বর’ (অর্ধেক নারী রূপী নটরাজ), ‘পরাঙ্গদা’, ‘নরনারী’ (পুরুষ-নারী), আম্মিয়াপ্পান (তামিল নাম, যেটির অর্থ ‘মাতা-পিতা’), ও ‘অর্ধযুবতীশ্বর’ (অসমে প্রচলিত নাম, যেটির অর্থ ‘অর্ধেক যুবতী রূপী ঈশ্বর’)।গুপ্ত যুগের লেখক পুষ্পদন্ত তাঁর মহিম্নস্তবে শিবের এই রূপটিকে ‘দেহার্ধঘটন’ (“তুমি ও তিনি একই দেহের দুই অর্ধাংশ) নামে বর্ণনা করেছেন। উৎপল তাঁর বৃহৎ সংহিতা টীকায় এই রূপটিকে ‘অর্ধগৌরীশ্বর’ (অর্ধেক গৌরী রূপী ঈশ্বর) নামে অভিহিত করেছেন।[৬] বিষ্ণুধর্মোত্তর পুরাণ গ্রন্থে এই রূপটিকে বলা হয়েছে ‘গৌরীশ্বর’।


উৎস ও প্রাচীন মূর্তিসমূহ
অর্ধনারীশ্বর ধারণাটি সম্ভবত বৈদিক সাহিত্যের যুগ্মমূর্তি যম-যমী, আদি সৃষ্টিকর্তা বিশ্বরূপ বা প্রজাপতি ও অগ্নির বৈদিক বর্ণনা “যিনি একাধারে বৃষ ও গাভী”, বৃহদারণ্যক উপনিষদ্‌ গ্রন্থে উভলিঙ্গ বিশ্বমানব পুরুষ রূপী আত্মা এবং প্রাচীন গ্রিসের হার্মাফ্রোডিটাস ও ফ্রিজিয়ান আগডিস্টিস অঙ্ক্রান্ত পুরাণকথা থেকে অণুপ্রাণিত। বৃহদারণ্যক উপনিষদ্‌ গ্রন্থে বলা হয়েছে, পুরুষ নিজেকে দুই ভাগে ভাগ করেছেন। একটি ভাগ পুরুষ ও অপর ভাগ নারী। এই দুই ভাগ মিলিত হয়ে সকল প্রাণ সৃষ্টি করেছেন। অর্ধনারীশ্বর কাহিনির মূল বিষয়বস্তু। শ্বেতাশ্বেতর উপনিষদ্‌ পৌরাণিক অর্ধনারীশ্বর ধারণার বীজ বপন করেছে। এই গ্রন্থ মতে, পৌরাণিক শিবের আদি সত্ত্বা রুদ্র সব কিছুর সৃষ্টিকর্তা। তিনিই সাংখ্য দর্শনের পুরুষ (পুরুষ তত্ত্ব) ও প্রকৃতির মূল। এই ধারণা অনুসারে, রুদ্র একাধারে পুরুষ ও নারী। এই ধারণা থেকে রুদ্রের উভলিঙ্গ সত্ত্বার একটি আভাস পাওয়া যায়।

অর্ধনারীশ্বর ধারণাটির উদ্ভব ঘটেছিল যুগপৎ কুষাণ ও গ্রিক সংস্কৃতিতে। কুষাণ যুগে (৩০-৩৭৫ খ্রিস্টাব্দ) অর্ধনারীশ্বরের মূর্তিতত্ত্বটি বিবর্তিত হয়। কিন্তু গুপ্ত যুগেই (৩২০-৬০০ খ্রিস্টাব্দ) এই মূর্তিতত্ত্ব পূর্ণাঙ্গ রূপ পরিগ্রহ করে। কুষাণ যুগের (খ্রিস্টীয় ১ম শতাব্দীর মধ্যভাগের) একটি কেন্দ্রস্তম্ভ এখন মথুরা সংগ্রহালয়ে রক্ষিত আছে। এই স্তম্ভে একটি অর্ধনারী-অর্ধপুরুষ মূর্তি খোদিত রয়েছে। সেই সঙ্গে আরও তিনটি মূর্তিও খোদিত আছে। এই তিনটি মূর্তি বিষ্ণু, গজলক্ষ্মী ও কুবেরের মূর্তি হিসেবে চিহ্নিত করা গিয়েছে। অর্ধনারী-অর্ধপুরুষ মূর্তিটির পুরুষার্ধটি ‘উর্ধলিঙ্গ’ এবং এই অংশে অভয় মুদ্রা প্রদর্শিত হয়েছে। অন্যদিকে নারী-অর্ধটির স্তনটি সুডৌল এবং এই অংশে মূর্তির হাতে একটি দর্পণ দেখা যায়। এটিই অর্ধনারীশ্বর মূর্তির সর্বজনস্বীকৃত প্রাচীনতম নিদর্শন। মথুরা সংগ্রহালয়ে রাজঘাট থেকে প্রাপ্ত একটি প্রাচীন অর্ধনারীশ্বর মূর্তির মস্তকভাগও রক্ষিত আছে। এই মস্তকের পুরুষার্ধটির মাথায় নরকরোটি সংবলিত জটা অর্ধচন্দ্র এবং বাঁদিকের নারী-অর্ধে সুবিন্যস্ত ও পুষ্পশোভিত কেশ এবং কানে পত্রকুণ্ডল বা দুল দেখা যায়। এই মুখে একটিই তৃতীয় নয়ন রয়েছে। অধুনা বিহার রাজ্যের বৈশালী থেকে প্রাপ্ত একটি টেরাকোটার সিলমোহরে অর্ধনারী-অর্ধপুরুষ মূর্তির চিত্র খোদিত রয়েছে। কুষাণ যুগের অর্ধনারীশ্বর মূর্তিগুলি সাধারণ দ্বিভূজ মূর্তি। তবে পরবর্তীকালে রচিত ধর্মগ্রন্থ ও নির্মিত ভাস্কর্যগুলিতে অর্ধনারীশ্বরের মূর্তিতত্ত্বটি আরও জটিল আকার নেয়।

গ্রিক লেখক স্টোবিয়াস(৫০০ খ্রিস্টাব্দ) বার্ডাসেনেসের (১৫৪-২২২ খ্রিস্টাব্দ) রচনা থেকে অর্ধনারীশ্বরের কথা উদ্ধৃত করেছেন। বার্ডাসেনেস এলাগাবালাসের (এমেসার অ্যান্টোনিয়াস) (২১৮-২২ খ্রিস্টাব্দ) রাজত্বকালে সিরিয়ায় একটি ভারতীয় দূতাবাসে সফরে এসে অর্ধনারীশ্বরের কথা জানতে পারেন। তক্ষশীলায় খননকার্য চালিয়ে শক-পার্থিয়ান যুগের টেরাকোটার একটি উভলিঙ্গ আবক্ষ মূর্তি পাওয়া গিয়েছে। এই মূর্তিতে নারীর স্তনবিশিষ্ট এক দাড়িওয়ালা পুরুষকে দেখা যায়।

অর্ধনারীশ্বর মূর্তিটি হিন্দুধর্মের দুটি প্রধান শাখা শৈবধর্ম ও শাক্তধর্মকে সংযুক্ত করার একটি প্রয়াস রূপে ব্যাখ্যা করা হয়। উল্লেখ্য, শৈবধর্ম শিব-উপাসনা কেন্দ্রিক এবং শাক্তধর্ম শক্তি-উপাসনা কেন্দ্রিক সম্প্রদায়। একইভাবে হরিহর মূর্তির দ্বারা শিব এবং বৈষ্ণব সম্প্রদায়ের সর্বোচ্চ দেবতা বিষ্ণুকে একীভূত করা হয়েছে।

মূর্তিতত্ত্ব
১৬শ শতাব্দীর মূর্তিতত্ত্ব সংক্রান্ত গ্রন্থ শিল্পরত্ন, মৎস্যপুরাণ এবং অংশুমাদভেদাগম, কামিকাগম, সুপ্রেদাগম ও কারণাগম প্রভৃতি আগম শাস্ত্রে অর্ধনারীশ্বরের মূর্তিতত্ত্বটি বর্ণিত হয়েছে। উল্লেখ্য, উপরিউক্ত আগমগুলি প্রধানত দক্ষিণ ভারতে রচিত হয়। শরীরের ডানদিকের ভাগটি প্রধান। এই ভাগটি সাধারণত শিবের। বাঁদিকের ভাগটি পার্বতীর। কোনো কোনো দুর্লভ বিবরণ অনুসারে, ডানদিকের প্রধান অংশটি পার্বতীর। এই বিবরণগুলি শাক্ত সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত। অর্ধনারীশ্বর মূর্তি সাধারণত চতুর্ভূজ, ত্রিভুজ বা দ্বিভূজ। কোনো কোনো দোষ্প্রাপ্য অষ্টভূজ মূর্তিও পাওয়া গিয়েছে। ত্রিভুজ মূর্তিগুলির ক্ষেত্রে পার্বতীর অংশে একটি মাত্র হাত রয়েছে। এর মাধ্যমে এই মূর্তিতে পার্বতীর ভূমিকা হ্রাসের আভাস দেওয়া হয়েছে।

পুরুষার্ধ
অর্ধনারীশ্বর মূর্তির পুরুষার্ধটির মস্তকে ‘জটামুকুট’ (মুকুটের আকারে জটা) দেখা যায়। এই জটামুকুটে শোভা পায় একটি অর্ধচন্দ্র। কোনো কোনো মূর্তিতে জটামুকুটে থাকে সর্প এবং সেই জটা থেকে দেবী গঙ্গাকে নির্গত হতে দেখা যায়। ডান কানে থাকে একটি ‘নক্রকুণ্ডল’, ‘সর্পকুণ্ডল’ (সাপের দুল) বা সাধারণ কুণ্ডল বা কানের দুল। কোনো কোনো মূর্তিতে নারী-অর্ধের তৃতীয় চক্ষুটির চেয়ে পুরুষার্ধের তৃতীয় চক্ষুটি ছোটো এবং পুরুষার্ধে দেখা যায় একটি অর্ধেক গোঁফ। শাস্ত্রে পুরুষার্ধে একটি অর্ধ তৃতীয় নেত্রের উল্লেখ পাওয়া যায়। কোনো কোনো বর্ণনা অনুসারে, অর্ধনারীশ্বরের কপালের মধ্যস্থলে একটি পূর্ণাঙ্গ তৃতীয় নেত্রটি মাঝখান থেকে দুই ভাগে বিভক্ত। পার্বতীর সিন্দূর-বিন্দুর উপরে বা নিচে একটি অর্ধ নেত্রের উল্লেখও রয়েছে। মাথার পিছনে একটি একক ডিম্বাকার জ্যোতিশ্চক্রও (‘প্রভামণ্ডল’ বা ‘প্রভাবলি’) দেখা যায়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এই জ্যোতিশ্চক্রটি দিক অনুসারে ভিন্ন প্রকার।

চতুর্ভূজ মূর্তিগুলিতে ডান হাতে থাকে একটি ‘পরশু’ (কুঠার) এবং অন্য হাতটি ‘অভয় মুদ্রা’র ভঙ্গিতে থাকে। কোনো কোনো মূর্তিতে দেখা যায়, ডান হাতদুটির একটি সামান্য বেঁকে শিবের বাহন নন্দীর উপর স্থাপিত এবং অন্য হাতে দেখা যায় ‘অভয় মুদ্রা’। অন্য একটি ধরনে দেখা যায়, ডান হাতে একটি ত্রিশূল ও অপর হাতটিতে ‘বরমুদ্রা’। অপর একটি শাস্ত্রের বর্ণনা অনুসারে, ডান হাত দুটিতে থাকে ত্রিশূল ও অক্ষমালা। দ্বিভূজ মূর্তিতে ডান হাতে থাকে ‘কপাল’ বা নরকরোটির পাত্র অথবা বরমুদ্রা। কোনো কোনো মূর্তিতে শুধুমাত্র নরকরোটিও দেখা যায়। বাদামী ভাস্কর্যে চতুর্ভূজ মূর্তিতে দেখা যায়, অর্ধনারীশ্বর বাঁ হাত ও ডান হাতের সাহায্যে বীণা বাজাচ্ছেন। তাঁর অপর ডান হাতে একটি পরশু এবং নারী-অর্ধের হাতে একটি পদ্ম রয়েছে।

ব্রোঞ্জনির্মিত ত্রিভুজ অর্ধনারীশ্বর মূর্তি
অর্ধনারীশ্বর মূর্তির শিব-অর্ধে দেখা যায় চ্যাপ্টা পুরুষালি বক্ষস্থল, ঋজু আনুভূমিক বক্ষস্থল, প্রসারিত কাঁধ, প্রসারিত কোমর ও পুরুষোচিত উরুদেশ। তাঁর বুকে ঝোলে একটি যজ্ঞোপবীত। কোথাও কোথাও এই যজ্ঞোপবীতটি হল ‘নাগযজ্ঞোপবীত’ (সর্পনির্মিত যজ্ঞোপবীত) বা মুক্তো বা মণির মালা। কোথাও কোথাও যজ্ঞোপবীতটি দেহের মধ্যভাগটিকে পুরুষ ও নারী-অর্ধে বিভক্ত করেছে। পুরুষার্ধে শিবের মূর্তিতত্ত্ব অনুসারে, সর্পভূষণ সহ নানা অলংকার দেখা যায়।

কোনো কোনো উত্তর ভারতীয় মূর্তিতে[২৭] পুরুষার্ধটির পুরুষাঙ্গটি উন্নত। এটিকে বলা হয় ‘উর্ধলিঙ্গ’ বা ‘উর্ধরেতা’। কোনো কোনো মূর্তিতে পুরুষাঙ্গটি অর্ধেক এবং ডিম্বাশয়ও একটি।যদিও দক্ষিণ ভারতে এমন কোনো মূর্তি পাওয়া যায়নি। মূর্তির কটিদেশে সাধারণত কাপড় (কোনো কোনো ক্ষেত্রে রেশম বা সূতির ধুতি অথবা বাঘ বা হরিণের চামড়া) থাকে। কাপড়টি হাঁটু অবধি ঝোলে। কোমরে থাকে ‘সর্পমেখলা’ বা সাপের তৈরি কোমরবন্ধনী বা অন্য অলংকার। ডান পাটি সামান্য বাঁকা। এটি অনেক ক্ষেত্রে ‘পদ্মপীঠ’ বা পদ্মের বেদীর উপর স্থাপিত অবস্থায় দেখা যায়। সমগ্র ডান-ভাগটি ভষ্মমাখা ও ভয়ংকর। এটি লাল বা সোনালি বা প্রবালের রঙের। যদিও এই ধরনের মূর্তিগুলির বিবরণ দুর্লভ।


0 comments:

Post a Comment

 
Design by দেবীমা | Bloggerized by Lasantha - Premium Blogger Themes | Facebook Themes